Archiveরায়গঞ্জ

যোগীর সভায় গাড়ি দেওয়ায় তৃণমূলের হুমকি, অভিযোগ বিজেপির, অস্বীকার তৃণমূলের

 

 

NBlive রায়গঞ্জঃ যোগীর সভায় বাস ভাড়া দেওয়ার কারণে গাড়ির চালকদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলল বিজেপি। অভিযোগের তির শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠন আইএনটিটিইউসির বিরুদ্ধে। বিজেপির অভিযোগ, সভার আগেই যখন গাড়ি ভাড়া করা হচ্ছিল সেই সময় বাস চালকদের হুমকি দিচ্ছিল তৃণমূল। সেই হুমকি উপেক্ষা করেও বেশ কয়েকজন বাস চালক সভায় গাড়ি ভাড়া দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এরপরেই কেন বিজেপির সভায় বাস দেওয়া হয়েছিল এই প্রশ্ন তুলে বাসের চালকদের ধমকি দিচ্ছে তৃণমূল। পুর বাস স্ট্যান্ডে বাস নিয়ে ঢোকার ক্ষেত্রেও বাধা দেওয়া হচ্ছে বলে বিজেপির অভিযোগ। এদিকে আইএনটিটিইউসির জেলা সভাপতি অরিন্দম সরকার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, রাজনৈতিক ভাবে তৃণমূলের সাথে না পেরে বিজেপি মনগড়া অভিযোগ করছে।

মঙ্গলবার বিজেপির দলীয় কার্যালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন জেলার সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ লাহিড়ী। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ইটাহার, হেমতাবাদ, করণদিঘি সহ একাধিক রুটের বাস চালকদের হুমকি দিচ্ছে তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠন। বিজেপির সভায় গাড়ি দেওয়ার কারণে তাদের পুর বাস স্ট্যান্ডে ঢুকতেও বাধা দেওয়া হচ্ছে। বাসের লাইন থেকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। সভার আগে যখন বাস চালকদের সাথে যোগাযোগ করা হয়েছিল তখন থেকেই তৃণমূলের পক্ষ থেকে হুমকি দেওয়া হচ্ছিল। এই কারণে প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম গাড়ির ব্যবস্থা হয়েছিল। এই ঘটনার প্রতিবাদে অবিলম্বে আন্দোলনে নামার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিজেপি। পুর বাস স্ট্যান্ড লাগোয়া এলাকায় অবস্থান বিক্ষোভ করা হবে বলেও এদিন জানিয়েছেন বিশ্বজিৎ বাবু।

এদিকে অভিযোগ অস্বীকার করে আইএনটিটিইউসির জেলা সভাপতি অরিন্দম সরকার বলেন, মানুষের মধ্যে বিজেপির উপর আক্রোশ তৈরি হয়েছে। যেই সব প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাঁরা ক্ষমতায় এসেছিলেন আজও তার কোনওটাই পালন হয়নি। তাই ক্ষমতা চলে যাওয়ার মুহূর্তে বিজেপির এই সব কাজকর্মকে মানুষ ভালো চোখে দেখছে না। আমরা জানতে পেরেছি, বিজেপির সভায় কিছু বাস মালিক ও শ্রমিক তাঁরা গাড়ি দিতে না চেয়ে তাঁদের আক্রোশ প্রকাশ করেছে। গণতান্ত্রিক দেশে যেমন গাড়ি ভাড়া দেওয়ার অধিকার আছে তেমন গাড়ি ভাড়া না দেওয়ার অধিকারও আছে। যদি কেউ গাড়ি ভাড়া না দিয়ে থাকে তাহলে তাঁরা কোনও অপরাধ করেনি। তবে দল অথবা ইউনিয়নের পক্ষ থেকে কাউকে কোনও বাধা দেওয়া হয়নি। কাউকে বাধা দেওয়া হলে পুলিশের কাছে অভিযোগ জমা পড়ত। এখনও জেলার কোনও থানায় কোনও অভিযোগ জমা পড়েনি। ফলে এই সব অভিযোগ বিজেপির মনগড়া ও সাজানো কাহিনী।

 

Related News

Leave a Reply

Back to top button