পোর্টজিন

“খিচুড়ি প্রেম” লিখেছেন ঐশ্বর্য্য কর্মকার

Bengal Live পোর্টজিনঃ পোর্টজিন কি? পোর্টজিন একটি অনলাইন ম্যাগাজিন। প্রতি সপ্তাহের রবিবার এটি বেঙ্গল লাইভের (bengallive.in) এর পোর্টজিন বিভাগ থেকে প্রকাশিত হয়।

bengal live portzine

 

নামে কি আসে যায়। আসলে খিচুড়ি নামটা শুনলেই মনের মধ্যে অনেক কিছু ভাবনা ” আসে। ” বর্ষা আসলেই শুধু ইলিশ আসে না , সাথে আসে খিচুড়ি। ইলিশ – খিচুড়ি কম্বিনেশনটাই একেবারে রাজযোটক।
শ্রাবন মাস। নিম্নচাপ। টানা বৃষ্টিতে গজল লাগবে। গ্রাম থেকে শহর , এপাড়া থেকে ওপাড়া ম ম করবে খিচুড়ির সুবাস। বর্ষার খিচুড়ির স্বাদ আবার শীতের রাতের স্বাদের থেকে আলাদা। কারণ বর্ষায় খিচুড়ির সাথে পাতে থাকবে ইলিশ আর শীতের রাতে থাকবে ফুলকপির বড়া। অনুষ্ঠান বাড়িতে গেলে খিচুড়ির চিত্রটা আরো পাল্টে যায় কারণ তখন খিচুড়ির সাথে আসে ছেচড়া , লাবরার তরকারি আর কাজু – কিশমিশ দেওয়া মিষ্টি।
কোনো বাড়িতে খিচুড়ি রান্না করা হয় সোনামুগ ডাল – গোবিন্দ ভোগ চাল এর সাথে ঘি – গরম মসলা দিয়ে আবার কোনো বাড়িতে মুসুর ডাল – তুলসী ভোগ চাল দিয়ে , আবার কোথাও যোগ করা হয় পেঁয়াজ।
ভোগের খিচুড়ির স্বাদ হয় আলাদা। আশ্চর্য একটা গন্ধ আসে। অষ্টমীর দুপুরে যে কোনো বনেদি বাড়িতে গেলে এই স্বাদের সাক্ষী থাকা যায়।
লাগাতার বৃষ্টি অথচ বাড়িতে খিচুড়ি হয়নি – এ বঙ্গদেশে এই রকম দেখা যায় না। রাতের বেলা যে খিচুড়ি খাওয়া হয় , সকাল বেলা তার স্বাদ একেবারে পাল্টে যায়। বাসি খিচুড়ি ও অনেকের প্রিয়।
বহুবছর আগে এক কালী পুজোতে খিচুড়ি খেয়ে ছিলাম। তখন ও আমার খিচুড়ি খেতে খুব একটা ভালো লাগতো না। সেই বাড়িতে খিচুড়ির সাথে ছিল আলুভাজা , গরম বেগুনি , আলুর দম , চাটনি , পাঁপড় ভাজা আর মিষ্টি। প্রেমে পড়েগিয়েছিলাম।
এখন তো বড়ো বড়ো রেস্তোরাতে হরেক রকমের খিচুড়ি পাওয়া যায় — ভেজ , চিকেন , মটন।

নবদ্বীপে আমার মামীর বাপের বাড়িতে খেয়ে ছিলাম এক নতুন ধরণের খিচুড়ি। রেসিপিটা কিছুটা এই রকম – সামান্য ঘি দিয়ে প্রথমে সোনামুগ ডাল টাকে ভেজে নিতে হবে। তার পর একে একে মেশাতে হবে কাজু , তেজ পাতা , দারচিনি , লবঙ্গ , এলাচ , জায়ফল। এরপর চাল আর ডালের দ্বিগুন পরিমান জল দিয়ে গ্যাসে বসাতে হবে। জল ক্রমশ কমে আসবে। মাঝে মাঝে খুঁটি দিয়ে নাড়াচাড়া করতে হবে। ব্যাস , তৈরী হয়ে গেলো খিচুড়ি।
রিমঝিম বৃষ্টি শুকনো মাটির উপর এসে পড়লেই মাটির সোঁদা গন্ধের সাথে আর একটি গন্ধের জন্য মন ছোটফোট করে , তা হলো খিচুড়ি।

কীভাবে লেখা পাঠাবেন?
নীচে উল্লিখিত হোয়াটসঅ্যাপ নাম্বার কিংবা ইমেল আইডিতে লেখা পাঠাতে পারবেন।
হোয়াটসঅ্যাপ নাম্বার~ 9635459953
ইমেল আইডি~ bengalliveportzine@gmail.com
লেখার সঙ্গে নিজের নাম, ঠিকানা, মোবাইল নম্বর এবং একটি ছবি পাঠানো আবশ্যক।
ভ্রমণ কাহিনীর সঙ্গে নিজের তোলা দুটো ছবি পাঠাতে হবে।

Related News

Leave a Reply

Back to top button