রায়গঞ্জ

শুধু একটা সেতু চায়, পঞ্চায়েতে তালা মেরে বলল রায়গঞ্জের ৪০ গ্রামের মানুষ

Join our WhatsApp group

স্বাধীনতার কাল থেকেই সমস্যার মধ্যে রয়েছেন তাঁরা। মিলেছে শুধু প্রতিশ্রুতি। হয়নি কাজ। স্থানীয় প্রশাসন থেকে মন্ত্রী, এমনকি উত্তরকন্যাতেও বারংবার পাকা সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়েও কোনও ফল মেলেনি। অবশেষে আন্দোলন।

ADVERTISEMENT

Bengal Live রায়গঞ্জঃ লোনাবতী নদীর উপর পাকা সেতু নির্মাণের দাবিতে পঞ্চায়েত অফিসে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভে সামিল হলেন গ্রামবাসীরা। বৃহস্পতিবার ঘটনাটি ঘটেছে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া ভাতুন ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, একাধিকবার স্থানীয় প্রশাসন, মন্ত্রী, এমনকি উত্তরকন্যাতেও লিখিত ও মৌখিক ভাবে দাবি জানানো হয়েছে। কিন্তু তাসত্ত্বেও সমস্যার সুরাহা হয়নি। ফলে সারা বছর নদী পারাপার করতে গিয়ে সমস্যার মুখে পড়ছেন ৪০টি গ্রামের কয়েক হাজার বাসিন্দা। আগামী দুই বা তিন মাসের মধ্যে দাবি পূরণ না হলে ভোট বয়কটের ডাকও দিয়েছেন বাসিন্দারা।

আন্দোলনকারী গ্রামবাসীদের দাবি, বর্ষার সময় ভরা নদীতে নৌকা নিয়ে পারাপারে যেমন সমস্যা, তেমনই বছরের অন্যান্য সময়ে বাঁশের মাচার উপর দিয়ে প্রাণ হাতে নিয়ে চলাচল করতে হয় তাজপুর, ঝিনুকপুর, কইলাহারা, ধাঙ্গিপুকুর, মোহনপুর সহ প্রায় চল্লিশটি গ্রামের কয়েক হাজার মানুষকে। এলাকার কেউ অসুস্থ হলে সেই রোগীকে রায়গঞ্জে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রেও প্রচণ্ড সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় বাসিন্দাদের৷ এই সমস্যা সমাধানের জন্য নদীর উপর পাকা সেতু নির্মাণের দাবি করে আসছেন গ্রামের বাসিন্দারা। কিন্তু কোনও সুরাহা হয়নি।

রায়গঞ্জে প্রতিবন্ধী নাগরিকদের জাতীয় সড়ক অবরোধ

আন্দোলনকারীদের অন্যতম স্থানীয় বাসিন্দা রইসউদ্দিন শেখ বলেন, প্রতিবারই ভোটের আগে নেতা মন্ত্রীরা পাকা সেতু নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়ে যান। আর ভোট পার হলেই তা ভুলে যান। জেলার মন্ত্রী গোলাম রব্বানি নিজে এই গ্রামে এসে প্রতিশ্রুতি দিয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু প্রতিশ্রুতি থেকে গিয়েছে প্রতিশ্রুতিতেই। স্বাধীনতার পর থেকে এই এলাকার মানুষ একটি সেতুর অভাবে চরম দুর্ভোগে কাটাচ্ছেন।

অপর আন্দোলনকারী কানু মুর্মুর অভিযোগ, গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে ব্লক ও জেলা প্রশাসন এমনকি উত্তরকন্যাতে গিয়ে এলাকায় সেতু নির্মাণের দাবি জানানো হয়েছে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের “দিদিকে বলো”-তেও ফোন করে আবেদন করা হয়েছিল। কিন্তু আজও সরকার থেকে কোনও উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে ভাতুন গ্রামপঞ্চায়েত অফিসে তালাবন্ধ করে বিক্ষোভে সামিল হয়েছেন তাঁরা। অবিলম্বে সরকার থেকে সেতু নির্মাণের উদ্যোগ না নেওয়া হলে আন্দোলন আরও বৃহত্তর আকার নেবে এবং প্রয়োজনে ভোট বয়কটেও তাঁরা সামিল হতে পারেন বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন গ্রামবাসীরা।

Related News

Leave a Reply

Back to top button