রাজ্য

কোচবিহারে বিক্ষোভের মুখে বিজেপি রাজ্য নেতৃত্ব

বিজেপি নেতৃত্বকে ঘিরে ব্যাপক বিক্ষোভ কোচবিহারে। পুলিশ পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বিক্ষোভের মুখে সায়ন্তন বসু, নিশীথ প্রামাণিক।

 

Bengal Live কোচবিহারঃ বিজেপির রাজ্য প্রতিনিধি দলকে ঘিরে ব্যাপক বিক্ষোভ কোচবিহারে৷ আক্রান্ত দলীয় কর্মীর বাড়িতে দেখা করতে যাওয়ার সময় রাস্তা আটকে বিক্ষোভ দেখান গ্রামবাসীরা। কালোপতাকা দেখানো হয় রাজ্য নেতৃত্ব সায়ন্তন বসু, সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক বিধায়ক মালতি রাভাকে। ঘটনা কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা কোচবিহার জেলার সিতাই এলাকায়। পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে পুলিশ।

নির্বাচনের পর থেকেই উত্তপ্ত কোচবিহার। ভোট পরবর্তী সন্ত্রাস অব্যাহত রয়েছে উত্তরের এই জেলায়। অভিযোগ, বিজেপি কর্মীদের মারধর, বাড়ি ভাঙচুর করার। শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উঠলেও তা অস্বীকার করে পালটা বিজেপির উপরেই তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের মারধর করার অভিযোগ করা হয়। এরই মাঝে বুধবার বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব সায়ন্তন বসু কোচবিহারে পৌঁছান। সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক ও বিধায়ক মালতি রাভাকে সাথে নিয়ে আক্রান্ত দলীয় কর্মীদের বাড়িতে যান তিনি।

জানা গেছে, দিনহাটা, শীতলখুচি, বিজলিচটকা গ্রামে যান বিজেপির প্রতিনিধি দলের সদস্যরা। সেখানে দলীয় কর্মীদের সাথে দেখা করে আর্থিক সাহায্যও করা হয় বলে বিজেপি সূত্রে খবর। এদিকে দিনহাটার বুড়িরহাটে যাওয়ার পথে বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয় প্রতিনিধি দলের সদস্যদের। রাস্তা আটকে বিক্ষোভ দেখান গ্রামবাসীদের একাংশ। বিজেপির অভিযোগ এই ঘটনার পেছনে তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা জড়িত। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছে শাসক নেতৃত্ব।

বিজেপির রাজ্য নেতা সায়ন্তন বসু বলেন, বর্বরতার চূড়ান্ত নিদর্শন। ১৪ মাসের শিশু থেকে ৭০ বছরের বৃদ্ধ কাউকে ছাড়া হয়নি। ডাকাতি, লুঠ সব মিলিত ভাবে হয়েছে। স্রেফ বিজেপিকে সমর্থন করার জন্যই এই হামলা চালানো হয়েছে। মানুষ আতঙ্কে আছেন। বহু বিজেপি কার্যকর্তা ঘর ছাড়া হয়েছেন। আমরা দেখা করলাম। কথা হয়েছে।

Related News

Leave a Reply

Back to top button