রাজ্য

একপ্রান্তে মমতা আরেক প্রান্তে দিলীপ, ভোটের আগে বচনে-ভাষণে তাঁতছে উত্তরবঙ্গ

উত্তরবঙ্গ সফরে এসে যখন বিজেপির বিরুদ্ধে সুর চড়াচ্ছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, তখন উত্তরবঙ্গেরই আরেক প্রান্তে দাঁড়িয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণাত্মক বক্তব্য রাখছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। কনকনে ঠাণ্ডাতেও রাজনীতির উত্তাপে গরম উত্তরবঙ্গ।

 

Bengal Live মালদাঃ ভোটের জন্য বারুদের স্তূপ তৈরি করছে তৃণমূল।শাসক দল তৃণমূলের সাহায্যে বাংলায় ঢুকছে বাংলাদেশি ও রোহিঙ্গারা। মঙ্গলবার বিকেলে মালদার মানিকচক থানার মথুরাপুরের জনসভায় রাজ্যের শাসকদল তৃণমূলকে এভাবেই আক্রমণ করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

এদিন মথুরাপুরের জনসভায় দিলীপ ঘোষ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, দলের রাজ্য সম্পাদক সায়ন্তন বসু , জেলা সভাপতি গোবিন্দ চন্দ্র মন্ডল সহ অন্যান্য নেতা-নেত্রীরা। প্রথমে সায়ন্তন বসু বক্তব্য রাখতে গিয়ে আক্রমণাত্মক ভাষায় তৃণমূল কংগ্রেসকে আক্রমণ করেন ।

কোচবিহারে নারায়ণী ব্যাটেলিয়ানের হেড কোয়ার্টার উদ্বোধন মুখ্যমন্ত্রীর

এদিনের সভায় দিলীপ ঘোষ বলেন, তৃণমূল বাংলায় পঞ্চায়েত ভোট করতে দেয়নি। বিজেপি কর্মীদের খুন করেছে তৃণমূল। লোকসভা ভোটে জবাব দিয়েছে মানুষ। কেন্দ্রীয় প্রকল্পের টাকা লুট করেছে তৃণমূল। আমফানের ক্ষতিপূরণের টাকায় স্বজনপোষণ হয়েছে। দুয়ারে সরকার করে লাভ নেই। ওটা যমের দুয়ারে চলে গিয়েছে।

এরপর দিলীপ ঘোষ সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, সারা দেশ জঙ্গিমুক্ত হয়েছে। উগ্রপন্থী ক্রিয়া-কলাপ বন্ধ হয়েছে। কারণ কেন্দ্রীয় সরকার কড়াকড়ি করছে।  লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশ থেকে আসছে। তাদেরকে আশ্রয় দেওয়ার জন্য এই ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাই সারা ভারতবর্ষে যখন উগ্রপন্থী নেই, পশ্চিমবঙ্গে তখন উগ্রপন্থী ধরা পড়ছে। কলকারখানা নেই , কাজ নেই। উল্টে অশান্তির সৃষ্টি হচ্ছে। এই সরকার যতদিন থাকবে, অবস্থার পরিবর্তন হবে না। সরকারের পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে আইন-শৃঙ্খলা পরিবর্তন হবে।

বিজেপি হিন্দু ভোট নেবে, হায়দ্রাবাদের নেতা মুসলিম ভোট নেবে, আমি কি কাঁচা কলা খাবো ?– মমতা

গরু পাচার প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষ বলেন, গরু পাচার অনেকদিন ধরে একটা বড় সমস্যা ছিল। আর হাজার হাজার কোটি টাকা এর সঙ্গে লেনদেন হত। তার মধ্যে মালদা একটা বড় করিডোর। এখন কয়েক মাস ধরে কেন্দ্রীয় সরকারের হোম ডিপার্টমেন্ট পদক্ষেপ নিয়েছে। যার ফলে গরু পাচার কমেছে এবং দোষীরা ধরা পড়ছে। যারা যারা যুক্ত রাজনৈতিক নেতা, পুলিশ, বিএসএফ সরকারি কর্মী কাউকে ছাড়া হবে না। কাটগড়ায় আসতে হবে ।

রান্নার গ্যাস প্রসঙ্গে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, রান্নার গ্যাস, পেট্রোল, ডিজেল এগুলো আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে কমবেশি হয় ।

শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে জল্পনার অবসান এই সপ্তাহেই, অবস্থান স্পষ্ট

Related News

Leave a Reply

Back to top button