রাজ্য

ঘাস দিয়েই ভাঙন রোধ, ভেটিভার লাগিয়ে নদীপাড় বাঁচানোর উদ্যোগ পঞ্চায়েতের

রাজ্য ইতিমধ্যেই ভেটিভার ঘাসের ব্যবহার শুরু হয়েছে। বাম আমল থেকেই ভাঙন রোধে এই ঘাসের ব্যবহার হয়ে আসছে। তৃণমূল কংগ্রেসের আমলেও রাজ্যের বেশ কয়েকটি জেলায় নদী ভাঙন রুখতে এই ঘাসের ব্যবহার শুরু হয়েছে।

Bengal Live বালুরঘাটঃ এবার নদী বাঁধ রক্ষায় ভেটিভারের ব্যবহারে উদ্যোগী হলো সমজিয়া গ্রাম পঞ্চায়েত। একশো দিনের কাজের মধ্যে দিয়ে ভেটিভার নামক ঘাস লাগানো শুরু করল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার কুমারগঞ্জ গ্রাম পঞ্চায়েতের সমজিয়া গ্রাম পঞ্চায়েত। আত্রেয়ী নদী সংলগ্ন এই এলাকায় বরাবরই নদীর পার ভাঙন, বাঁধের সমস্যা লেগেই রয়েছে। প্রতি বর্ষায় কার্যত এই সমস্যার মুখোমুখি হতে হয় বাসিন্দাদের৷ এমন পরিস্থিতিতে ভেটিভার ঘাস রোপণ করে একদিকে কর্মসংস্থান অন্যদিকে নদী ভাঙন রোধ হবে বলেই দাবি কর্তৃপক্ষের।

এলাকাটি আত্রেয়ী নদী বরাবর অবস্থিত। প্রতিবার নদী ভাঙনের গ্রাসে পরে সেখাকার বিস্তীর্ণ এলাকা। সেদিকে নজর রেখেই এবার বেশকিছু এলাকার মাটির বাঁধে ভেটিভার ঘাস লাগানো শুরু করল সমজিয়া গ্রাম পঞ্চায়েত। একশো দিনের কাজের প্রকল্পর মধ্যে দিয়ে এই কর্মসূচির নাম দেওয়া হয়েছে ভেটিভার প্ল্যান্টেশন রিভার ব্যাঙ্ক। কানুর এলাকায় মোট ৫ লক্ষ ৩২ হাজার টাকার এই প্রকল্প আপাতত হাতে নেওয়া হয়েছে। ধীরেধীরে অনান্য এলাকায় এই ঘাস লাগিয়ে নদী বাঁধ রক্ষার উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে গ্রাম পঞ্চায়েতের পক্ষ থেকে৷ গ্রাম পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষর কথায়, গত বর্ষায় পরীক্ষা মূলকভাবে শুরু এই পদ্ধতিতে তারা সফল হয়েছিলেন। সেকারণে এবার আরও বেশি করে এই ঘাস রোপণ করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

ফের হাসপাতালে ভর্তি সাহিত্যিক বুদ্ধদেব গুহ, রয়েছে শ্বাসকষ্ট-সহ একাধিক সমস্যা

ভেটিভার কী? ভেটিভার হলো একপ্রকার ঘাস। হিন্দিতে খসখস, বাংলায় খুস নামে পরিচিত এই ঘাস। তামিল শব্দ ভেট্টিভার থেকে এসেছে ইংরেজি শব্দ ভেটিভার। ভাঙন রোধে ভেটিভার লাগানো শুরু হয়েছিল বাম আমলে। তৃণমূল কংগ্রেসের জমানাতেও এই ঘাস ব্যবহার হয়ে চলেছে। ভাঙন রোধ ছাড়াও ভেটিভার ঘাস ব্যবহৃত হয় আরও বেশ কয়েকটি কাজে। গ্রীষ্মের উত্তাপ কমাতেও গ্রামগঞ্জে এখনও এই ঘাসের পরদা লাগানোর চল রয়েছে। এছাড়া ভেটিভারের একটি প্রজাতি থেকে সুগন্ধি তেল, ঘাসের দড়ির তৈরি নানান হস্তশিল্প। আয়ুর্বেদিক ওষুধ তৈরিতেও এই ঘাসের ব্যবহার হয়।

Related News

Leave a Reply

Back to top button