রাজ্য

চন্দ্রগ্রহণ ২০২০ঃ করোনা আবহে বছরের শেষ চন্দ্রগ্রহণ, বিজ্ঞান মতে মহাজাগতিক ঘটনা

আজ বছরের শেষ চন্দ্রগ্রহণ। চন্দ্রগ্রহণ ২০২০ দৃশ্যমান হবে ভারত সহ বিভিন্ন দেশে। বিজ্ঞান মতে গ্রহণ নিছকই একটি মহাজাগতিক ঘটনা। করোনা অতিমারিতে অতিষ্ঠ মানুষ তবু গ্রহণ চলাকালীন মেনে চলবেন নানা সংস্কার।

 

Bengal Live ডেস্কঃ আজ ২০২০ সালের শেষ চন্দ্রগ্রহণ। এমনিতেই করোনা অতিমারি সহ নানা কারণে ২০২০ সালটি ভারত সহ বিশ্ববাসীর কাছে অভিশপ্ত বছর হিসেবে পরিগনিত হয়েছে। সাধারণ মানুষ ভাবছেন, কবে ২০২০ সাল বিদায় নেয় ! করোনায় হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু নাড়িয়ে দিয়েছে গোটা পৃথিবীবাসীকে। ভারত তথা বাংলায় বিভিন্ন ক্ষেত্রের একাধিক বিখ্যাত মানুষের জীবন কেড়ে নিয়েছে করোনা। লকডাউনের ফলে বিশ্বজুড়ে অর্থনৈতিক মন্দা সহ ঘটে গেছে নানা অঘটন ও বিপর্যয়। প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে বহু মানুষের ব্যক্তিগত জীবনেও ঘটে গেছে অনেক অনভিপ্রেত ঘটনার। সব মিলিয়ে ভাল নেই বেশির ভাগ মানুষই। এরই মাঝে আজ বছরের শেষ চন্দ্রগ্রহণ।

ADVERTISEMENT

চন্দ্রগ্রহণ ২০২০ নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে নানা জল্পনা ও আলোচনা। বছরের শেষ চন্দ্রগ্রহণের কেমন প্রভাব পড়বে মানব জীবনে ? বিজ্ঞানে বিশ্বাসী বা যুক্তিবাদীরা অন্য কথা বললেও জ্যোতিষশাস্ত্র মতে মানুষের জীবনে ব্যাপক প্রভাব পড়ে চন্দ্রগ্রহণের। জ্যোতিষরা বলছেন, করোনা আবহে আজকে বছরের এই শেষ চন্দ্রগ্রহণেরও নাকি প্রভাব পড়বে সমস্ত রাশিচক্রের উপর। তাঁদের মতে কন্যা, ধনু ও মিথুন রাশির উপর বেশি মাত্রায় প্রভাব ফেলবে চন্দ্রগ্রহণ ২০২০। চন্দ্রগ্রহণের কুপ্রভাব কাটানোর জন্য গ্রহণ চলাকালীন নানা রকম বিধিনিয়ম মেনে চলারও নিদান দেন জ্যোতিষীরা। নানা ঘাত-প্রতিঘাতে অতিষ্ঠ দুর্বল চিত্তের মানুষ সেসব বিধিনিয়ম মেনেও চলেন। কিন্তু বিজ্ঞান মতে চন্দ্রগ্রহণ বা সূর্যগ্রহণ নিছকই একটি মহাজাগতিক ঘটনা। এর ফলে মানুষের দৈনন্দিন জীবনে কোনও কুপ্রভাবই পড়ে না। বিজ্ঞান মঞ্চের সদস্যরা বারবার সেকথা বোঝানোর চেষ্টা করেন সাধারণ মানুষকে। কিন্তু বহুকাল ধরে যে বিশ্বাস মানুষের মনে গেঁথে রয়েছে তাকে দূর করা তো সহজ নয় !

বিভিন্ন পঞ্জিকা অনুযায়ী আজ, ৩০ নভেম্বর, সোমবার চন্দ্রগ্রহণ শুরু হবে দুপুর ১ টা ২ মিনিট থেকে। গ্রহণ লেগে থাকবে বিকেল ৫ টা ২৩ মিনিট পর্যন্ত। অর্থাৎ টানা চার ঘন্টা একুশ মিনিট পর গ্রহণ ছাড়বে বিকেল ৫ টা ২৩ মিনিটে। বৃষ রাশিতে হওয়া এই চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে ভারত সহ আমেরিকা, এশিয়া ও অস্ট্রেলিয়ায়র বিস্তীর্ণ অঞ্চলে।

Related News

Leave a Reply

Back to top button