রাজ্য

২০১৬-এর চেয়ে এবারের জোট অনেক বেশি শক্তিশালী, কারণ দিয়ে বোঝালেন সেলিম

বাম-কংগ্রেস জোট নিয়ে একাধিক মন্তব্য করলেন রায়গঞ্জের প্রাক্তন সাংসদ তথা সিপিএম পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম। কেন ২০১৬ সালে জোট মুখ থুবড়ে পড়েছিল তাও জানালেন তিনি।

 

Bengal Live রায়গঞ্জঃ তৃণমূল যে ভাইরাস ছিল, সেটাই মিউটেশন করে এখন বিজেপি ভাইরাসে পরিণত হয়েছে। দুটোই ক্ষতিকর। সেই কারণে রাজ্যে কংগ্রেস, সিপিআইএম সহ বিভিন্ন বামপন্থী দলগুলো নিজেদের মধ্যে ঐক্য তৈরি করেছে। আগামী ফেব্রুয়ারী মাসের মধ্যে বিজেপি ও তৃণমূলের বিপরীতে যারা আছে তাদের সকলকে এককাট্টা করা হচ্ছে। মঙ্গলবার দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিতে এসে সাংবাদিক সম্মেলনে এমনই মন্তব্য করলেন রায়গঞ্জের প্রাক্তন সাংসদ তথা সিপিএমের পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম। এদিন হেমতাবাদে একটি সভায় যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে মহম্মদ সেলিমের।

সাংবাদিক সম্মেলনে তৃণমূল ও বিজেপিকে এক হাত নেওয়ার পাশাপাশি আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বাম-কংগ্রেস জোট প্রসঙ্গেও মন্তব্য করেন মহম্মদ সেলিম। তিনি বলেন, “সিপিএম তথা বাম-কংগ্রেস মাটিতে ছিল, মাটিতে আছে৷ এখন অঙ্কুরোদগম নয়, ধীরে তা বেড়ে মহীরুহ হচ্ছে। আর তাই শুধু মিডিয়া নয়, বিজেপি ও তৃণমূল কংগ্রেসও বাম-কংগ্রেসকে জোটের আবেদন জানাচ্ছে”। তিনি এও বলেন, বিজেপি, তৃণমূল এমনকি অনেক মিডিয়াও বলছিল যে সিপিএম কংগ্রেসকে দূরবীন দিয়ে দেখা যায় না। তারাই এখন বাম কংগ্রেসকে নিয়ে মাতামাতি শুরু করেছে।

সমঝোতা মানে দলের অস্তিত্ব বিপন্ন করে দেওয়া নয়। বরং সেটা আরও জাগিয়ে তোলা। ২০১৬ সালের বাম-কংগ্রেস জোটের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ২০১৬ সালে জানুয়ারি মাসে কথা হয়ে ফেব্রুয়ারি মাসে সমঝোতা হয়েছিল। কিন্তু এবার ২০১৮ সালে পার্টি কংগ্রেসে এই সিদ্ধান্ত হয়েছে। এছাড়াও বিগত এক বছর থেকে বাম-কংগ্রেস মিলিত ভাবে বিভিন্ন আন্দোলন করেছে। নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধেও একত্রিত হয়ে আন্দোলন করা হয়েছে। করোনার সময়, রেশনের দাবিতে, আমফানের সময় আমরা যৌথ আন্দোলন করেছি। এখনও সেই আন্দোলন চলছে। এর থেকে পরিষ্কার পশ্চিমবঙ্গে সিপিএম ও কংগ্রেসের শক্তি অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে।

Related News

Leave a Reply

Back to top button