রায়গঞ্জ

ছাগল চুরির অভিযোগে গণপিটুনি ও গাড়ি ভাঙচুর, উত্তেজনা ইটাহারে

Bengal Live ইটাহারঃ ছাগল চুরি করার অভিযোগে এক ছোট গাড়ির চালককে বেধরক মারধর করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ইটাহারে।

গাড়ি ভাঙচুরের পাশাপাশি গণপিটুনি দেওয়া হয় রাজু দাস নামে অভিযুক্ত গাড়ির চালককে। ঘটনাস্থলে পৌঁছে অভিযুক্তকে উদ্ধার করে ইটাহার থানার পুলিশ। চিকিৎসার জন্য তাকে নিয়ে যাওয়া হয় ইটাহার ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে।

অভিযোগ, ইটাহার থানার বগুন গ্রাম থেকে ছাগল চুরি করে গাড়ি চালিয়ে পালানোর চেষ্টা করছিল রাজু দাস। স্থানীয়দের নজরে ঘটনাটি আসতেই ওই গাড়ির চালককে তাড়া করে গ্রামবাসীরা। এদিকে ছাগল গাড়িতে তুলে তীব্র গতিতে পালানোর চেষ্টা করে রাজু বলে অভিযোগ গ্রাম বাসীদের।

গ্রামবাসীদের অভিযোগ, রায়গঞ্জের উকিলপাড়া এলাকার ওই গাড়ির চালক ছাগল নিয়ে জাতীয় সড়ক ধরে ইটাহারের দিকে পালানোর সময় বেপরোয়া ভাবে গাড়ি চালায়। বেপরোয়া গাড়ির ধাক্কায় একাধিক মানুষ সহ গবাদি পশু জখম হয়। জানা গেছে, ইটাহার চৌরাস্তা এলাকায় পৌঁছলে সিগন্যালে থমকাতে হয় রাজুকে। সেখানেই বগুন ও গোটলু গ্রামের বাসিন্দাদের হাতে ধরা পড়ে রাজু।

অভিযুক্তকে মারধর করার পাশাপাশি গাড়িও ভাঙচুর করা হয় বলে জানা গেছে। বগুন গ্রামের বাসিন্দা আজমল হোসেন বলেন, “আজকে আমারই একটি খাসি চুরি করে পালাচ্ছিল রাজু দাস। ধাওয়া খেয়ে সে বেপরোয়া গাড়ি চালিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। তার গাড়িতে থাকা খাসি সে রাস্তাতেই কোথাও ফেলে দিয়েছে।”

এদিকে ছাগল চুরির অভিযোগ অস্বীকার করে গাড়ির চালক রাজু দাসের দাবী, রায়গঞ্জ হাসপাতাল থেকে ছুটি হওয়া এক রোগীকে নামিয়ে বগুন গ্রাম থেকে ফিরছিলাম। তখনই ছাগল চুরি করার অভিযোগ তুলে আমাকে ধাওয়া করা হয়। তাকে দেওয়া হয়।

চৌরাস্তা এলাকায় গণপিটুনির খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় ইটাহার থানার পুলিশ। উত্তেজিত জনতার হাত থেকে উদ্ধার করে রাজুকে নিয়ে যাওয়া হয় ইটাহার ব্লক হাসপাতালে। পুলিশ পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। প্রাথমিক ভাবে পুলিশ জানতে পেরেছে, অভিযুক্ত রাজু একজন দাগী চোর ও নেশাখোর। এর আগেও সে রায়গঞ্জ থানার পুলিশের হাতে ধরা পড়েছিল।

Related News

Leave a Reply

Back to top button