রায়গঞ্জ

রাতের রায়গঞ্জে বন্ধ সব ওষুধের দোকান, জরুরী ভিত্তিতে দোকান খোলা রাখার দাবী

রাতের রায়গঞ্জে বন্ধ সব ওষুধের দোকান, জরুরী ভিত্তিতে দোকান খোলা রাখার দাবী

Bengal Live রায়গঞ্জঃ রাতের রায়গঞ্জে ওষুধের দোকান বন্ধ থাকায় সমস্যার মুখে সাধারণ মানুষ। হয়রানির শিকার হতে হয় রায়গঞ্জ মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসা করাতে আসা রোগীর আত্মীয়দের। অভিযোগ, রাত ১১টার পর থেকে শহরে কোনও ওষুদের দোকান খোলা থাকে না। ফলে আচমকা কোনও ওষুধের প্রয়োজন হলে শহরের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত ঘুরে দেখলেও ওষুধ মেলেনা। প্রয়োজন মেটাতে অনেক সময় ব্যবসায়ীদের বাড়ি থেকে ডেকে আনতে হয় মাঝেমধ্যেই। এমন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় রোজই।

উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থার ডিপো সংলগ্ন এলাকার এক ব্যবসায়ী জানিয়েছেন, প্রায় দিনই রাতে ওষুধের খোঁজে সাধারণ মানুষকে হন্যে হয়ে ঘুরতে দেখা যায়৷ মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসাধীন রোগীর প্রয়োজনীয় ওষুধের খোঁজে কোন দোকান খোলা মিলবে তা অনেকেই জানতে চান। তবে ওই রাতে কোনও ওষুদের দোকান খোলা না থাকায় নিরুত্তর থাকতে হয়।

দিন দুয়েক আগের ঘটনা। ইটাহার থেকে আগত এক রোগীর পরিজন অসীম বর্মন বলেন, পেটের ব্যাথা নিয়ে রায়গঞ্জ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আত্মীয়কে ভর্তি করিয়েছি। চিকিৎসক একটি ওষুধ দিয়েছেন। হাসপাতালের ন্যায্য মূল্যের ওষুধের দোকানে তা না মেলায় বাইরের দোকানে খুঁজতে বেরিয়ে ছিলাম। কিন্তু কোনও দোকান খোলা না পেয়ে খালি হাতেই হাসপাতালে ফিরে যেতে বাধ্য হই।

অপর একজন জানিয়েছেন, কোনও দোকান খোলা না পেয়ে অবশেষে এক ওষুধ ব্যবসায়ীকে বাড়ি থেকে ডেকে এনে প্রয়োজন মেটাই।

শুধু চিকিৎসা করাতে আসা গ্রামাঞ্চলের সাধারণ মানুষরাই নয়, শহরের বাসিন্দারাও একই মত ব্যক্ত করেছেন। রাতের শহরে ওষুধের দোকান খোলা রাখার দাবী জানিয়েছেন সকলেই।

আরও পড়ুনঃ কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেসের মধ্যে সংঘর্ষ চোপড়ায়, আহত তিন

এই বিষয়ে বেঙ্গল কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট এসোসিয়েশনের সম্পাদক নিতাই কর বলেন, আমরা এমন একটি পদক্ষেপ গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত আগেও একবার নিয়েছিলাম। কিন্তু রাতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা সুনির্দিষ্ট করার বিষয়ে সেই অর্থে কোনও আশ্বাস আমরা পাইনি প্রশাসনের পক্ষ থেকে৷ সেই কারণেই তখন এই পদক্ষেপ গ্রহণ করা যায়নি। তবে আমরা সংগঠনের পক্ষ থেকে সাধারণ মানুষকে পরিষেবা দিতে আবারও এই বিষয়ে আলোচনা করব। প্রশাসনের থেকে নিরাপত্তার আশ্বাস পেলে অবশ্যই রাতে শহরে ওষুধের দোকান খোলা রাখার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এই বিষয়ে রায়গঞ্জ পুরসভার পুর প্রধান সন্দীপ বিশ্বাস বলেন, সরকারি ন্যায্য মূল্যের ওষুধের দোকান ২৪ ঘন্টাই খোলা থাকে৷ মানুষ সেখান থেকে পরিষেবা পান। তবে ওষুধ ব্যবসায়ীদের এই পদক্ষেপকেও স্বাগত জানাই৷ রায়গঞ্জ পুরসভাও ব্যবসায়ীদের পাশে রয়েছে।

Related News

Leave a Reply

Back to top button