লাইফ স্টাইল

ক্যান্সার প্রতিরোধে সক্রিয় ভূমিকা পেঁয়াজের, জানুন পেঁয়াজের গুনাবলী ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

Bengal Live ডেস্কঃ  কম বেশী সব রান্নাতেই পেঁয়াজ একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি উপাদান। তবে শুধু রান্নার স্বাদ বৃদ্ধিই নয় এর স্বাস্থ্যগুনও প্রচুর। ডায়াবেটিস ও ক্যান্সার থেকে শুরু করে চুলের যত্নে ভীষণ উপকারী পেঁয়াজ। চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক পেঁয়াজের গুনাগুন ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া।

গুনাগুনঃ 

হার্ট সুস্থ রাখতেঃ 
কাঁচা পেঁয়াজ এলডিএল অর্থাৎ খারাপ কোলেস্টেরল উৎপাদন কমিয়ে হার্টকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে ।

কোচবিহারের সভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভোকাল টনিক, কী বার্তা দিলেন নেত্রী?

ক্যান্সার প্রতিরোধেঃ
ক্যান্সার প্রতিরোধে অত্যন্ত সাহায্যকারী একটি উপাদান হলো পেঁয়াজ। পেঁয়াজে উপস্থিত একটি শক্তিশালী কম্পাউন্ড, যা ক্যান্সার প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। মাথা, ঘাড় ও কোলন ক্যান্সার নির্মূল করতে সহায়তা করে।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণেঃ 
পেঁয়াজ রক্তে ​​শর্করার নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে।শরীরের ইনসুলিন উৎপাদন বাড়িয়ে দেয়। এবং ডায়াবেটিস রোধ করতে সাহায্য করে। এছাড়া রক্তে চিনির মাত্রা ঠিক রাখতে সহায়তা করে।

জ্বর ও শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যায়ঃ 
শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা বা নাক থেকে রক্তপাত বন্ধ করতে নাকের তলায় একটুকরো পেঁয়াজ রাখুন, কমবে সমস্যা। এছাড়াও পেঁয়াজের রসের সাথে মধু মিশিয়ে খেলে জ্বর, সাধারণ ঠান্ডা লাগা, এলার্জি ইত্যাদি থেকে নিরাময় পাওয়া যায়।

চুলের যত্নেঃ 
চুল পড়া রোধ করার জন্য মাথায় পেঁয়াজের রস ব্যবহার করলে নিঃসন্দেহে উপকার পাবেন। পেঁয়াজে উপস্থিত ভিটামিন সি চুলের স্বাস্থ্যের জন্য বিশেষ উপকারী।

কোচবিহারের সভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কড়া আক্রমণ নরেন্দ্র মোদীর

ত্বকের যত্নেঃ 
পেঁয়াজে থাকা ভিটামিন সি ত্বকের কালচে দাগ দূর করে। এক্ষেত্রে পেঁয়াজ ও হলুদের রস একসাথে মিশিয়ে লাগিয়ে রাখুন, কালচে দাগ হবে।

রোগ-প্রতিরোধেঃ 
পেঁয়াজে থাকে অ্যান্টি-সেপ্টিক, অ্যান্টি-বায়োটিক অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল উপাদান। তাই রোগের সংক্রমণ দূর করতে এটি সাহায্য করে। এছাড়া, পেঁয়াজ ঘুম এবং ক্ষুধা বাড়াতে সাহায্য করে।

পেঁয়াজের স্বাস্থ্যগুনের সংখ্যাই বেশী। পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার সম্ভাবনা থাকলেও খুবই কম। চাইলেই সাবধানতার সাথে নিরাময় লাভ করা যেতে পারে।

বাড়ীতেই রেস্তোরাঁর স্বাদে রেড চিকেন! রইল রেসিপি।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াঃ 

আন্ত্রিক গ্যাসঃ  পেঁয়াজে থাকা ফেনলিক কম্পাউন্ড ও সরল চিনি যা অনেকের ক্ষেত্রেই অ্যাসিডিটির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

ঔষধের কাজে বাঁধা সৃষ্টিঃ পেঁয়াজ ব্লাড থিনার ড্রাগ এর কাজে বাঁধা প্রদান করে। যারা রক্ত জমাট বাঁধা বা রক্ত তরলকারক ওষুধের ক্রিয়ায় বাঁধা দান করে।

এছাড়া পেঁয়াজে অ্যালার্জির থাকলে পেঁয়াজ এড়িয়ে চলাই ভালো। সেক্ষেত্রে ত্বক ও চোখের লালচে ভাব, শ্বাসের অসুবিধা সহ অন্যান্য অ্যালার্জির লক্ষণ দেখা দিতে পারে।

Leave a Reply

Back to top button