রাজ্য
Trending

পরকীয়া ও সম্পত্তি নিয়ে বিবাদ, স্বামীকে নৃশংস ভাবে খুনের অভিযোগ স্ত্রী-এর বিরুদ্ধে

দেওরকে সঙ্গে নিয়ে স্বামীকে নৃশংস ভাবে খুন করার অভিযোগ। গ্রেপ্তার করা হয়েছে দুই অভিযুক্তকে। পাশাপাশি আটক করা হয়েছে মৃতের ছেলেকেও।

 

Bengal Live মালদাঃ হাত পা ভেঙে,মাথা থেঁতলে নৃশংস ভাবে স্বামীকে খুন করার অভিযোগে উঠল স্ত্রী ও পরিজনদের বিরুদ্ধে। ঘটনায় ছড়ালো চাঞ্চল্য। ঘটনাটি ঘটেছে মালদার হরিশ্চন্দ্রপুরের ডেইলি মার্কেট এলাকায়। খুন করে মৃতদেহ লোপাটের চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ প্রতিবেশীদের। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুলিশ। পরকীয়া ও সম্পত্তি নিয়ে বিবাদের জেরেই মূলত করা হয়েছে খুন বলে অনুমান পুলিশের। ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে অভিযুক্ত মৃতের স্ত্রী ও দাদাকে। পাশাপাশি আটক করা হয়েছে মৃতের ছেলেকেও।

স্থানীয় সূত্রে খবর, মৃত ওই ব্যক্তির নাম রাম মুসোহর (৩৭)। নিয়মিত মদ্যপান করায় স্ত্রী পঞ্চমী মুসোহর ও ছেলে বাপি মুসোহরের সঙ্গে প্রায়ই বিবাদ লেগে থাকতো তাঁর। পেশায় মুলত রঙ মিস্ত্রির কাজ করত রাম ও তাঁর ছেলে। কিন্তু এরইমধ্যে দিল্লি থেকে হরিশ্চন্দ্রপুরে এসে রং মিস্ত্রির কাজ শুরু করে তাঁর পিসতুতো দাদা মনোজ। ব্যবসা জমে উঠলে রাম ও পঞ্চমীদের সঙ্গে একই বাড়িতে থাকতে শুরু করে মনোজ। এরপরেই পঞ্চমীর সঙ্গে মনোজের সম্পর্ক নিয়ে শুরু হয় বিবাদ। বিবাদের জেরেই মদ্যপান আরও বেড়ে গিয়েছিল রামের। কাজকর্ম না করায় মুলত সংসার চালাতো মনোজই। তাঁকে সাহায্য করত বাপি। এরপরই বাড়ি বিক্রি করে অন্যত্র চলে যাওয়ার ছক কষে মৃতের স্ত্রী পঞ্চমী ও দাদা মনোজ। আর সেখানেই বাধা হয়ে দাঁড়ায় রাম। এই নিয়ে কদিন ধরে চরমে ওঠে বিবাদ।

দীর্ঘদিন বন্ধ ফ্লাইওভার, নাকাল শহরবাসী

গতকাল রাতে হাত পা ভাঙা ও মাথা থ্যাঁতলানো অবস্থায় উদ্ধার করা হয় রাম মুসোহরকে। মৃতদেহ লোপাটের চেষ্টা করা হয়েছিল বলে অভিযোগ প্রতিবেশীদের। মৃতদেহ সরানোর জন্য একটি গাড়ি ভাড়া করে আনতে বলা হয় রামের ছেলে বাপীকে। সে গাড়ির খোঁজ করতে গেলে প্রতিবেশীদের সন্দেহ প্রবল হয়। সন্দেহের জেরে তাঁদের বাড়িতে গেলেই, সিঁড়ির নিচে লুকানো অবস্থায় রামের রক্তাক্ত দেহ দেখতে পান প্রতিবেশীরা। এরপর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুলিশ। উদ্ধার করা হয় মৃতদেহ। পাশাপাশি ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয় শাবল, গাঁইতি, দা।

ঘটনায় মৃতের স্ত্রী পঞ্চমী ও দাদা মনোজকে গ্ৰেপ্তার করেছে পুলিশ। আটক করা হয়েছে ছেলে বাপিকেও। প্রথমে মুখ চেপে ধরে পিটিয়ে হাত পা ভেঙে,পরে মাথায় ভারী কিছু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে । শুধু তাই নয় মৃত্যু নিশ্চিত করতে গলা টিপেও রাখা হয় বলে প্রাথমিক অনুমান পুলিশের।

ত্বক থেকে চুল সবকিছুর যত্নে সবেদা, জানুন বিশদে

Related News

Leave a Reply

Back to top button